ঢাকামঙ্গলবার , ২১ মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  1. অপরাধ
  2. আন্তর্জাতিক
  3. আবহাওয়া
  4. কর্পোরেট বুলেটিন
  5. কৃষি সংবাদ
  6. খেলাধুলা
  7. গণমাধ্যম
  8. চাকরি
  9. জাতীয়
  10. জেলা সংবাদ
  11. ঢাকা বিভাগ
  12. ধর্ম ও জীবন
  13. নাগরিক সংবাদ
  14. পদ্মাসেতু
  15. পাঁচমিশালি
আজকের সর্বশেষ সব খবর

চুক্তিতে তরুণীকে নিয়ে ওঠেন হোটেলে, চুক্তি টাকার ধন্ধে গলা কেটে হত্যা

নিজস্ব প্রতিবেদক, ময়মনসিংহ
মার্চ ২১, ২০২৩ ৫:১২ অপরাহ্ণ
Link Copied!

ময়মনসিংহ নগরীর নিরালা রেস্ট হাউস নামে একটি আবাসিক হোটেলে অজ্ঞাতপরিচয় (২০) তরুণীর গলা কাটা মরদেহ উদ্ধারের ঘটনায় জড়িত যুবককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। রাকিবুল ইসলাম রাকিব (২৩) নামে ওই যুবক হত্যাকাণ্ডের স্বীকারোক্তি দিয়েছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ। রাকিব জানান, ওই তরুণী যৌনকর্মী ছিলেন। পাঁচ হাজার টাকা দেয়ার শর্তে তাকে নিয়ে হোটেলে উঠেছিলেন তিনি। রাতযাপনের পর টাকা পরিশোধ নিয়ে বাকবিতণ্ডার জেরে তরুণীকে গলা কেটে হত্যা করেন রাকিব।

তিনি মুন্সীগঞ্জ জেলার গজারিয়া থানাধীন নতুন চরচাষী গ্রামের বাসিন্দা। তাকে গ্রেপ্তার করে গত সোমবার আদালতে তোলা হয়। সেখানে রাকিব স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। পরে আদালত তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

আজ মঙ্গলবার সকালে জেলা পুলিশ সুপার মো. মাছুম আহম্মদ ভূঞা তার কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে তরুণী খুন ও রাকিবকে গ্রেপ্তারের বিস্তারিত তুলে ধরেন।

পুলিশ সুপার জানান, গত ১৮ মার্চ বেলা সাড়ে ১১টার দিকে রেস্ট হাউসের এক কর্মী কক্ষ পরিষ্কার করতে গিয়ে দেখেন বাথরুমে গলা কাটা অবস্থায় তরুণীর মরদেহ পড়ে আছে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে মরদেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠায় পুলিশ। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রেস্ট হাউস মালিক মো. মুসাকে আটক করে ছেড়ে দেয়া হয়। পরে পুলিশ বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা করে।

মাছুম আহম্মদ ভূঞা জানান, মামলার পর তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় গত রোববার সন্ধ্যায় মুন্সীগঞ্জ জেলার গজারিয়া থানা এলাকা থেকে হত্যায় অভিযুক্ত রাকিবকে গ্রেপ্তার করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেন রাকিব।
পুলিশ সুপার জানান, লেখাপড়ার পাশাপাশি সমাজসেবা কার্যালয়ে আউটসোর্সিংয়ের কাজ করছিলেন রাকিব। গত ১৪ মার্চ সন্ধ্যায় ঢাকার আগারগাঁও অফিস থেকে মিরপুর শেওড়াপাড়া বাসস্ট্যান্ড ফুটওভার ব্রিজ দিয়ে যাওয়ার সময় ওই যৌনকর্মীর সঙ্গে তার কথা হয়। তখন তিনি ওই তরুণীকে পাঁচ হাজার টাকা দেয়ার শর্তে ময়মনসিংহ নিয়ে আসেন। শহরের নিরালা রেস্ট হাউসে স্বামী-স্ত্রীর পরিচয় দিয়ে রাতযাপন করেন তারা।

রাকিবের স্বীকারোক্তির বরাত দিয়ে পুলিশ সুপার বলেন, শর্তের টাকা নিয়ে পরদিন ১৫ মার্চ ওই তরুণীর সঙ্গে আসামির ঝগড়া হয়। একপর্যায়ে সকাল ১০টার দিকে বাইরে এসে ১০০ টাকায় চাকু কেনেন রাকিব। এরপর হোটেল কক্ষে গিয়ে তরুণীর গলা কেটে শৌচাগারে ফেলে পালিয়ে যান তিনি।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি জাগো বুলেটিনকে জানাতে ই-মেইল করুন- jagobulletinbd@gmail.com